ভোট ডাকাতির পরও আন্দোলন নয় কেন: বিএনপিকে সৈয়দ ইব্রাহিম

আপডেট: 2019-01-27 19:25:27

৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে ‘ভোট মহাডাকাতি’ হয়েছে বরে মন্তব্য করেছেন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শীর্ষ নেতা সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম বীরপ্রতিক।এরপরও বিএনপি আন্দোলনের ডাক না দেয়ার সমালোচনা করেছেন তিনি।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে’ বাংলাদেশ লেবার পার্টি আয়োজিত ‘সংহতি সমাবেশে’ সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, ২০ দলীয় জোটকে কার্যকর রাখতে নিজেদের সমন্বয় প্রয়োজন। আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে গিয়েছে বিএনপি, কিন্তু ভোট মহাডাকাতির পর কেন আন্দোলনে যাচ্ছেন না? আসলে আমাদের কোথাও গলদ আছে, আসলে আমরা বোবা হয়ে গেছি।No photo description available.

২০ দলীয় জোটের আরেক শরিক লেবার পার্টির সভাপতি ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান মনে করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টই বিএনপিকে ডুবিয়েছে।ঐক্যফ্রন্টের ভূমিকা মূল্যায়নের সময় এসেছে বলেও মন্তব্য তার।

ইরান বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলার সময় এসেছে। গণতন্ত্রের স্বার্থে আমরা কোনো কিছু বলিনি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের কোনো প্রয়োজন ছিল না। এটা আমাদের ডুবিয়েছে।

২০ দল পরীক্ষিত জোট দাবি করে ইরান বলেন, ২০ দল পরীক্ষিত, জোটকে বিতর্কিত করতে সরকার দালালদের দিয়ে প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে। নিজেদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, পাতানো নির্বাচনের পরে কোনো কর্মসূচি না দেয়ায় আমাদের নেতৃত্ব ব্যর্থ হয়েছে।

সংহতি সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম (বীরপ্রতিক), এনডিপি চেয়ারম্যান আবু তাহের ও অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

সভায় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) ড. অলি আহমদ বলেন, আপনি তো ওমরাহ করেছেন, নামাজ পড়েন। বলেন তো, অলি আহমদের মত লোক ২২ হাজার ভোট পাবে?Image may contain: phone

প্রধানমন্ত্রীকে ‘ভুল শুধরে’ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে অলি বলেন, ৩০ ডিসেম্বর যে ভুল করেছেন, তা শুধরাতে একটি ‘সুষ্ঠু নির্বাচন’ দিন। ভোট ডাকাতির কথা প্রধানমন্ত্রী স্বীকার করলেই পারতেন।

‘প্রধানমন্ত্রীকে বলব, যেভাবেই হোক, ক্ষমতায় যেহেতু আছেন, দোষ স্বীকার করে নিলেই হয়। সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে দেশকে মুক্ত করুন, নইলে দীর্ঘমেয়াদে অনিশ্চয়তার মুখে পড়বে দেশ’-যোগ করেন অলি।

আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে অলি বলেন, আওয়ামী লীগের ইতিহাস হলো, তারা কখনো জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। আওয়ামী লীগ দাবি করে, তারা মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি, আমি বলব, তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হত্যাকারী দল।