ফেইসবুকে ফেইক আইডি ও চেহারা চেনার উপায়

আপডেট: ০৩ জানুয়ারী ২০২০, ১০:৩০

ফেসবুকে ‘ফেক’ চেহারা চেনার কৌশল-

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে এ ধরনের চেহারা তৈরি করা হচ্ছে। বাস্তবে এ ধরনের কোনো ব্যক্তির অস্তিত্ব নেই। বিশেষ করে সুদর্শন নারী-পুরুষ দেখলেই পটে যাবেন না। কারণ এসব ছবি আসল নয়; ফেক।

ফেসবুকে এখন চলছে ভুয়া ছবির কারবার। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে ভুয়া ছবি। এ ধরনের ভুয়া চেহারার অ্যাকাউন্টগুলো ধরতে কাজ করছে ফেসবুক।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, অনেক চেষ্টার পরও ফেসবুকে ভুয়া ব্যক্তি অধরা থেকে যাচ্ছে না। গত শুক্রবার ফেসবুকে শত শত ভুয়া অ্যাকাউন্ট, পেজ ও গ্রুপ বন্ধ করার কথা জানিয়েছে। ফেসবুকের অনেক অ্যাকাউন্ট ও পেজ থেকে ভুল তথ্য ও অসত্য ছবি ব্যবহার করে প্রতারিত করা হচ্ছিল। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যে ছবি ব্যবহার করা হয়েছে, তা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে তৈরি করা।

অ্যাকাউন্ট নিয়ে যারা গবেষণা করেছেন, তারা বলছেন– কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ব্যবহার করে তৈরি করা অনেক ছবি ফেসবুকে ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে। আগামী বছর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো কীভাবে এ সমস্যা ঠেকাবে, তা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হচ্ছে।

ফেসবুকের ভুয়া অ্যাকাউন্টগুলোতে যে প্রোফাইল পিকচার ব্যবহার করা হয়, তা মূলত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে তৈরি করা হয়। তবে ভালোভাবে খেয়াল করলে এসব ছবিতে কিছু খুঁত দেখতে পাওয়া যায়।

বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হচ্ছে, ফেসবুকে সব ছবি দেখেই এখন আর বিশ্বাস করবেন না। প্রতিটি ছবি ভালোভাবে খেয়াল করতে হবে।

১. ফেসবুকে কোনো অপরিচিত কারও কাছ থেকে বন্ধুত্বের অনুরোধ এলে তা যাচাই করে দেখুন।

২. যে ব্যক্তি বন্ধুত্বের অনুরোধ পাঠিয়েছে, তার ছবি কিনা তা ভালোভাবে খেয়াল করুন।

৩. যেহেতু কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে ছবি তৈরি করা হচ্ছে, তাই কারও চেহারা সুন্দর দেখে বিশ্বাস করবেন না।

৫. ছবিতে কোনো খুঁত দেখলে বা সন্দেহ হলে গুগলে ওই ব্যক্তি সম্পর্কে অনুসন্ধান করে দেখতে পারেন।

৬. অনেক ভুয়া অ্যাকাউন্ট অনলাইন থেকে সুদর্শন কোনো পুরুষ বা নারীর ছবি নিয়ে তৈরি করা হয়। ভালোভাবে সার্চ দিলেই প্রকৃত বিষয়টি ধরতে পারবেন।

ফেইক আইডি চেনার কৌশল:

ফেইসবুকে ফেইক আইডির ভিড়ে এখন আসল আইডিই চেনা বড় দায়। বিশেষ করে মেয়েদের আইডির ক্ষেত্রে এই সমস্যা আরো প্রকট। আইডিটা ফেইক নাকি আসল সেটা বুঝতে কষ্ট হয়। কিভাবে আপনি বুঝবেন আইডিটা ফেইক? আসুন দেখে নেই:

প্রোফাইল পিকচার:
বর্তমানে কিছু কিছু ছবি আছে যা অনেক ফেইক আইডিতেই প্রোফাইল পিকচার হিসেবে ব্যবহার করছে ফেইক আইডি ব্যবহারকারীরা। এই ছবিগুলো দেখলেই চেনা যায়। এসব ছবি যদি ব্যবহার হয় তাহলে বুঝবেন ওই আইডি ফেইক হবার সম্ভাবনাই বেশি। আইডিতে শুধুমাত্র একটি ছবিও ফেইক আইডির লক্ষণ। এছাড়া ফেইক আইডিতে আসল সাইজের ছবি থাকেনা, থাকে ছোট সাইজের বা কেটে নেয়া ছবি।

বন্ধু তালিকা:
আইডির বন্ধু তালিকা যদি পাবলিক করা থাকে তাহলে দেখে নিতে পারেন। এছাড়া বিভিন্ন উপায়ে গোপন করা বন্ধু তালিকাও দেখা যায়। মেয়েদের ক্ষেত্রে বন্ধু তালিকায় যদি ৩/৪ হাজার বন্ধু থাকে তাহলে সেই আইডি ফেইক হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। ছেলেদের আইডির ক্ষেত্রে এটা প্রযোজ্য নয়।

পোষ্ট:
আইডিতে যদি নোংরা বা খারাপ পোস্ট থাকে তাহলে বুঝতে হবে সেটা ফেইক আইডি। কেননা কেউই তার নিজ ফেইসবুক আইডিতে নোংরা পোষ্ট দিয়ে নিজেকে সবার সামনে খারাপ বানাতে চায়না। এটা হলে বুঝবেন ওই আইডি ১০০ভাগ ফেইক।

পেজ লাইক:
আপনার সন্দেহের আইডিটি কি ধরনের পেজে লাইক দিয়েছে সেটা তার রিসেন্ট এক্টিভিটিতেই প্রদর্শন করে, আর টাইমলাইনে তো বটেই। যদি ফেইক আইডি হয়, ১০-১২ টা ১৮+ পেজ যে আপনার নজরে পড়তে পারে। এছাড়া খেয়াল করুন কেমন গ্রুপে সে যুক্ত। সাধারণত লোকে এমন গ্রুপে জয়েন করে যা তার স্কুল/কলেজ/ইউনিভারসিটি, কর্মক্ষেত্র, কোন সেবামূলক কাজ ইত্যাদির সাথে যুক্ত। ফেইক আইডি এসবের তোয়াক্কা করে না। যেখানেই গ্রুপ পায়, জয়েন করে ফেলে।

ইউজার নেম আর আইডি নেম একই কিনা দেখুন:
এই জায়গাটায় অনেকেই ভুল করে ফেলে। এই ইউজার নেমটি একবারে বেশি বদলানো যায় না। তাই এটা হতে পারে আপনার জন্য ফেইক বা রিয়েল আইডি বুঝার অন্যতম উপায়। মিলিয়ে দেখুন ইউজার নেম এবং সেই আইডিটির নাম একই কিনা।

পেজ লাইক ইনবাইট:
কেউ যদি মেয়ের আইডি থেকে বারবার তার ফেইসবুক পেজগুলো লাইক দেয়ার জন্য ইনভাইট পাঠায় তাহলে বুঝতে হবে ওই আইডি ফেইক। ওই আইডিটি খুলেছে তার ফেইসবুক পেজের লাইক বাড়ানোর জন্য।

নাম্বার দেয়া:
আইডি মেয়েদের নামে কিন্তু যদি দেখেন ওই আইডিতে এক বা একাধিক নাম্বার দেয়া আছে তাহলে বুঝতে হবে ওই আইডিটা ফেইক। কারণ কোনো মেয়েই ফেইসবুকে তার নাম্বার দেয়না। দিলেও সেটা ‘অনলি মি’ করে রাখে যাতে কেউ দেখতে না পারে।